“পাহাড়ের রোজনামচা — দ্বিতীয় পর্ব { লেখাটিwww.amaderchhuti.com ও Tour & Tourists পত্রিকায় ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশিত।}

 

DSCN9767পাঞ্জাবিদের  সাথে  মালপত্র  নিয়ে  গুরুদ্বোয়ারায়  উঠলাম।  পাশেই  বিড়লা  গেষ্ট  হাউস।  অজস্র  ফুল  ফুটে আছে।  সেখানে  জায়গাও  আছে,  চার্জও  খুব  একটা  বেশি  নয়।  তবু  ভবিষ্যতের  কথা  ভেবে  ওদের  সাথে গুরুদ্বোয়ারায়  গেলাম।  মাঝখানে  উপাসনা  কক্ষ।  সাধুবাবা  পাঞ্জাবি  তীরথের  গেষ্ট, তার  সঙ্গেই এসেছেন।  তিনি  আমাদের  জায়গা  করে  নিতে  বললেন।  ওদের  পাশেই   হোল্ড-অলগুলো  খুলে,  তিনজনের  শোয়ার  ব্যবস্থা  করে  নিলাম।  মাথা  থেকে  টুপি  খুলতে   গেলে  তীরথ  জানালো  গুরুদ্বোয়ারায়  খালি  মাথায়  থাকতে  নেই।  আমরা  রাস্তায়  এসে  চা  জলখাবার  খেয়ে, একটু  ঘুরে  বেড়ালাম।  খুব  কুয়াশা, জামাপ্যান্ট  ভিজে  যাচ্ছে।  বাধ্য  হয়ে  গুরুদ্বোয়ারায়  ফিরে  এলাম।  চুপচাপ  বসে  থাকা  ছাড়া  কোন  কাজ  নেই।  একটু  পরে  ওদের  উপাসনা  ঘরে  প্রার্থনা  শুরু  হ’ল।  “শতনাম  এ  হ্যায়  গুরু”,  আর  সকলের  সাথে  প্রার্থনা  ঘরে  আমরাও  সুর  করে  গাইলাম।  প্রার্থনা  শেষে  অবশ্য  সামান্য  সুজি  প্রসাদ  পেলাম।  তীরথের  মা,  বোন,  এবং  আর  সব  মহিলারা   গেলেন  সবার  জন্য  রুটি  বানাতে।  একসময়  ডাক  এলে,  আমরা  সবাই  একসাথে  খেতে  গেলাম।  খোলা  আকাশের  নীচে  লম্বা  শতরঞ্চি  পাতা।  একটা  কল  থেকে  বরফের মতো  ঠান্ডা  জল  পড়ছে।  হাত  ধুয়ে  বসে  পড়লাম।  হাল্কা  ঝিরঝিরে  বৃষ্টি  পড়ছে।  আমরা  সকলে  বৃষ্টিতে বসে  আছি।  একটু  দুরেই  রুটি  তৈরির  কাজ  জোর  কদমে  চলছে।   এবার  কয়েকজন  পাঞ্জাবি  খাবার  পরিবেশন  করা  শুরু  করলো।  বিরাট  বিরাট  থালা  প্রত্যেকের  সামনে   রেখে  দিয়ে  যাওয়া  হ’ল।  এক  পাত্র  করে  ডাল  থালায়  ঢেলে  দিয়ে  যাওয়া  হ’ল,  সঙ্গে  একটু  করে  বিট-গাজরের  আচার।  এবার  ওরা  রুটি  নিয়ে  এল।  রুটি  কিন্তু  থালায়  দেবার  নিয়ম  নেই।  হাত  পাততে  হবে,. ওরা  হাতে  দিয়ে  যাবে।  একটা  রুটি  কেউ  বলে  না,  এক  লাখ  রুচি,  বা  এক  লাখ  প্রসাদী  বলতে  হয়।  কারণ  জিজ্ঞাসা  করায়,  তীরথ  এক  অদ্ভুত  গল্প  শোনালো।  এত  কিছুর  পরেও  কিন্তু  খাওয়া  শুরু  হ’ল  না।  মাধবকে  বললাম,  দ্বিতীয়বার  যদি  এই  অবস্থায়  থাকতে  হয়,  তাহলে  নির্ঘাত  নিউমনিয়া  হবে।  যাহোক্,  খুব  তাড়াতাড়ি  দু’টো  রুটি  শেষ  করে  ফেললাম।  খিদে  থাকলেও  বৃষ্টিতে  ভিজে,  ডালরুটি  খাবার  ইচ্ছা  আর  রইলো  না।  তীরথ  আমাদের  একটু  বসতে  বললো।  একসাথে  উঠতে  হবে,  এটাই  প্রথা।  আমাদের  কান্না  পেয়ে  যাচ্ছে।  এ  জাতীয়  বিপদে  আগে  কখনও  পড়ি  নি।  কিন্তু  এরপর  যা  শুনলাম,  তাতে  তো  অজ্ঞান  হবার  উপক্রম।  বাসন  নিজেদের   মেজে  পরিস্কার  করে  দিতে  হবে।  ধনি,  দরিদ্র,  সবার  এক  নিয়ম।  এখনও   বুঝতে  পারছি  না  শুধু  নিজের  থালা   মাজতে  হবে,  না  রান্নার  সমস্ত  বাসন  নিজেদের  মাজতে  হবে।  এবার  দেখা  গেল  অনেকেই  ছাই  দিয়ে  বাসন  মাজতে  শুরু  করেছে।  বড়  বড়  দু’টো   ড্রামে  গরম  ও ঠান্ডা   জল  রাখা   আছে।  আমরা  কোনমতে  জল  দিয়ে  থালা  ধুয়ে, একছুটে  ঘরে  ফিরে  এলাম।  নিজেদের  শোবার  জায়গায়  ফিরে  এসে  দেখি,  পাঞ্জাবিদের  নিজেদের  মধ্যে  কী  নিয়ে  খুব  তর্ক  বেধেছে। উত্তেজনা  ক্রমশঃ  বাড়ছে।  শিখরা  কোমরে  ছোট  তরবারি  রাখে, যাকে  কৃপাণ  বলে  জানতাম,  কিন্তু  এখানে  দেখি  তারা  বেশ  বড়  বড়  তরবারি  কোমরে  ঝুলিয়ে  এসেছে।  তরবারি  জীবনে  অনেক  দেখার সুযোগ  হয়েছে,  কিন্তু  তার  ব্যবহার  দেখার  সুযোগ  জীবনে  বোধহয়  এই  প্রথম   এল।  দেখি  শিখরা  কোমরে  ঝোলা  খাপ থেকে  তরবারি  বার   করে,  “মাঠমে  আও   দেখ   লেঙ্গে”  ইত্যাদি  বলতে   শুরু  করেছে।  হাতে  খোলা  তরবারি ,  মুন্ডু  যাবে  কী  না  চিন্তায়  আছি।  শেষে  এক  সাধু  পাঞ্জাবি  ওদের  ঝগড়া  থামিয়ে  দিয়ে,  আমাদের  জানালেন  যে,  আমাদের  ভয়ের  কোন  কারণ  নেই।  এটা  ওদের  নিজেদের  ব্যাপার।  এতক্ষণে  বুঝলাম  ইনি  এই  গুরুদ্বোয়ারার  প্রধান।  গুরুদ্বোয়ারার  এতবড়  বাড়িতে  আমরা  তিনজনই  অভাগা  বাঙালি  এবং  সম্ভবত  হিন্দু।  আর  সবাই  শিখ।  ক্রমে  রাত  বাড়ছে।  শুয়ে  পড়লাম।  ভোরে  ঘুম  ভেঙ্গে  গেল   তীরথের   ডাকে।  চোখ   মেলে  দেখি,  সে  আমার  পায়ের   দিকে  দাঁড়িয়ে  আছে।  আমার   পাশে  সঙ্গীদের  দেখলাম  না,  সম্ভবত  প্রকৃতির  ডাকে  সাড়া  দিতে  গেছে।  সামনে  সবাই  “শতনাম  এ  হ্যায় গুরু”  সুর  করে  গেয়ে,  প্রার্থনা  করছে।  গতরাতে  খেতে  বসেও  এরা  বৃষ্টির  মধ্যে,  এই  সুরে  প্রর্থনা করছিল।  আমরা  রুটি  হাতে  তখন  চুপ  করে  বসে  ছিলাম।

চটপট্  হোল্ড-অল  বেঁধে  নিলাম।  বন্ধুরাও  ইতিমধ্যে  ফিরে  এল।  তীরথের  বোন  আমাদের  চা   খেতে বললো,  গুরুদ্বোয়ারায়  চা  খেতে হয়।  সামান্য  কয়েক  চুমুক  চা  খেয়ে  মালপত্র  নিয়ে,  বাসে  চলে  এলাম। বাসের  ছাদে  মালপত্র  তুলে,  কিছু   জলখাবার   খেয়ে  নিলাম। আজই  আমরা   গোবিন্দঘাট   থেকে  হেঁটে  ঘাংরিয়া  যাব।  যোশীমঠ  থেকে  বাস  রাস্তা  খুব  সরু।  বদ্রীনারায়ণ  থেকে  সকালে  যে  সব বাস  ছেড়েছে,  সেগুলো  একে  একে  যোশীমঠ  এসে  পৌঁছলো।  সবার  শেষে  যে  গাড়িটা  আসলো , তাতে  একটা সবুজ  পতাকা  লাগানো আছে।  এটাই  এ  পথের  সিগনাল।  সবুজ  পতাকা  মানে,  এরপর  আর  কোন  গাড়ি ওদিক  থেকে  এদিকে  আসবে  না।  এবার  এদিক  থেকে  ওদিকে  যাবার  গাড়ি  ছাড়তে  পারে।  এবার  এদিক  থেকে  একে  একে  বাস  ছাড়তে  শুরু  করলো।  সব  শেষের  গাড়িতে  সবুজ  পতাকাটা  লাগানো  হবে।  এখান  থেকে  গোবিন্দঘাট  মাত্র  আঠার  কিলোমিটার  পথ।  সকাল  সাড়ে  দশটার  সময়  আমরা  গোবিন্দঘাটে  নামলাম।  সামান্য  দুরেই  গুরুদ্বোয়ারা।  তীরথ  চটপট্  ওদের  ও  আমাদের  মালপত্র  এক জায়গায়  গুছিয়ে  রেখে  দিল।  সিমেন্টের  ছোট   ছোট  খোপে,  মাল  রাখার  সুন্দর  ব্যবস্থা।  মাল  রাখার রসিদও  পেলাম।  একতলায়  নেমে  এসে  চা  খেলাম।  এখানে  আমাদের  রুটি  খাবার  কথা  বললেও,  এখন চা রুটি খাবার ইচ্ছা হ’ল না।

GOBINDAGHAT গোবিন্দ্ ঘাট

এবার  হাঁটতে  হবে।  কাঁধের  ঝোলাব্যাগে  ওয়াটার  প্রুফ্  ও  টুকিটাকি  জিনিস  নিয়ে  নিলাম।  তিনজনের  তিনটে  ঝোলাব্যাগের  একটার  ভিতরে  একটা  রামের  বোতল।  আমার  অফিসের  আর্মডগার্ড,  কল্যানদা এনে  দিয়েছিল।  একটা  ব্রিজ  পার  হয়ে  অপর  পারে  এসে,  এখান  থেকে  জায়গাটার  একটা  ছবি  তুলে  নিলাম।  ইতিমধ্যে  তীরথ,  ওর  বোন,  ওর  মা,  ও   ভগ্নীপতি   এসে  উপস্থিত   হ’ল।   তীরথের   বোন  আমাদের  তিনজনকে  অনেকটা  মনাক্কা,  কিশমিশ,  পেস্তা,  মিছরি,  ইত্যাদি  দিল।  সঙ্গে  ছোট  এলাচ।  আমরা  হাঁটতে  শুরু  করলাম।  তের  কিলোমিটার  পথ  হেঁটে,  আজ  যাব  ঘাংরিয়ায়।  এই  জাতীয়  হাঁটা  পথে  এই  প্রথম।  ফলে  মনে  বেশ  হিরো  হিরো  ভাব।  হাঁটতেও  বেশ  ভাল  লাগছে।  অনেকটা  পথ  হেঁটে  আমরা  “জঙ্গলচটি”  তে  এসে  পৌঁছে,  সামান্য  পকোড়া  আর  চা  খেয়ে  নিলাম।  তীরথ  কিন্তু  কিছুতেই  দাম দিতে  দিল  না।  ওর  ভগ্নীপতি  অসুস্থ,  তীরথের  কাঁধে  ভর  দিয়ে  হাঁটছে।  ফলে  ওদের  হাঁটার  গতি  খুব  কম।  ওদের  সাথে  ওর  বোনও  হাঁটছে,  মা  যাচ্ছেন  কান্ডিতে।  এবার  “পাল্লুগাঁও”  বা  “পান্নাগাঁও”  এসে, আর  এক  দফা  চা,  বিস্কুট  ইত্যাদি  খেয়ে  নিয়ে,  তীরথদের  চা,  বিস্কুটের  দাম  অগ্রিম  দিয়ে,  ওদের  জন্য অপেক্ষা  করতে  লাগলাম।  কিছুক্ষণের  মধ্যেই  ওরা  এসে  হাজির  হ’ল।  তীরথরা  আসতেই  দোকানদার  ওদের  চা,  বিস্কুট  দিল।  তীরথ  দোকানদারকে  আমাদের  পয়সা  ফিরিয়ে  দিতে  বলে,  নিজে  দাম  দিতে  গেল।  ওর  ভগ্নীপতি  ওকে  বললো,  এতে  আমাদের  অপমান  করা  হবে।  পরের  বার  তীরথ  যেন   দাম  দিয়ে  দেয়।  আবার  দু’হাত  ভরে  পেস্তা,  মনাক্কা  ইত্যাদি  নিয়ে,  আমরা  এগিয়ে  গেলাম।  এত  পরিস্কার  মিছরি,  এত  বড়  বড়  মনাক্কা  ও  কিশমিশ,  আমরা  আগে  খাওয়া  তো  দুরের  কথা, চোখেও  দেখি  নি। “ভিউডাঁর”  নামে  একটা  ছোট্ট  গ্রামে  আমরা  এসে  পৌঁছলাম।  এখানে  তীরথ  আমাদের  আপেল,  পালক-পাতা  নামে  একপ্রকার  পাতার  বড়া  ও  চা  খাওয়ালো।  বড়াগুলো  অনেকটা  এখানকার  বেগুনীর  মতো।  গরম  গরম  খেতেও  বেশ  ভালই  লাগছিল।  ক্রমে  ক্রমে  শুধু  তীরথের  দলটাই  আমাদের  সঙ্গে  রয়ে  গেল। ভাবতেও   বেশ  ভাল  লাগছে  যে,  কয়েকজন  পাঞ্জাবি  তাদের  আর  সব  পাঞ্জাবিদের  ছেড়ে,  আমাদের  সাথে  মিশে  গেছে।  এবার  আমরা  অনেকটা  এগিয়ে  গেলাম।  রাস্তা  যেন  আর  শেষই  হয়  না।  বেশ  কষ্টকর  রাস্তাও  বটে।  রাস্তায়  কয়েকজন  পাঞ্জাবি  আমাদের  ওয়াটার  বটল্  থেকে  জল  খেল।  আমরা  আবার  এগিয়ে  চললাম।  রাস্তা  যতই  খারাপ  হোক,  এই  প্রথম  হাঁটছি, তাই  সেরকম  কোন  কষ্ট  হচ্ছে  না।  সামনে  বেশ  খানিকটা  জায়গা  উপত্যকা  মতো।  সেটা  পার  হয়ে  আমরা  দাঁড়ালাম।  যতদুর  চোখ যায়  দৃষ্টি  প্রসারিত  করেও,  কোন  লোকজন  চোখে  পড়লো  না।  কিছুক্ষণ  অপেক্ষা  করে  চিৎকার  করেও  কারো  কোন  সাড়া  পাওয়া  গেল  না।  বেশ  কিছুক্ষণ  পরে  বহুদুরে  লোকজন  আসতে  দেখলাম।  এতদুর  থেকেও  আমাদের  সাথে  একই  বাসে  আসা  পাঞ্জাবিগুলোকে  চিনতে  অসুবিধা  হ’ল  না।  আমরা  নিশ্চিন্ত  হয়ে  এগিয়ে  চললাম।  আর  কিছুটা  পথ  হেঁটে  ঘাংরিয়া  এসে  পৌঁছলাম।

একটা  দোকানে  বসে  চা  খেলাম  এবং  ডিম  পাওয়া  যায়  দেখে, আমাদের  তিনজনের  জন্য  তিনটে  ডিম  সিদ্ধ  করতে  বলে,  তীরথদের  জন্য  অপেক্ষা  করতে  লাগলাম।  কিছুক্ষণের  মধ্যেই  দুরের  সেই  পাঞ্জাবিরা এসে  উপস্থিত   হ’ল।  আমরা   ওদের  সঙ্গে   গুরুদ্বোয়ারায়   গেলাম।   তীরথও   তার  সঙ্গীদের  নিয়ে  এসে  পৌঁছল।  বাইরে  নোটিশ  বোর্ডে   বড়  বড়  করে  লেখা  আছে  যে,  গরুদ্বোয়ারায়  মাদক  ও  তামাকজাত  দ্রব্য   নিয়ে  প্রবেশ  নিষিদ্ধ।  ধুমপান  নিষিদ্ধ।  আমাদের   খুব   চিন্তা  হচ্ছিল  এই  ভেবে   যে,  আমার  কাপড়ের  ঝোলাব্যাগে  রামের  বোতল  আছে,  তামাক  তো  আছেই।  ব্যাগে  একটু  হাত  লাগলেই  বোঝা  যাবে,  ভিতরে  কী  আছে।  আমরা  রামের  বোতল  যতই  ওষুধ  হিসাবে  নিয়ে  আসি  বা  ব্যবহার  করি  না  কেন,  মাদক  দ্রব্য   তো  বটে।  গুরুদ্বোয়ারা  কর্তৃপক্ষ  আমাদের  দশ  নম্বর   ঘরটা   দিলেন।  টিনের  এই  ঘরগুলো   মূল  হলঘরের  মতো  ভাল  নয়।  ঘাংরিয়ার  উচ্চতা  সমুদ্র  পিষ্ঠ  থেকে  প্রায়  দশ  হাজার  ফুট  উঁচু,  কাজেই  রাত্রে  বেশ  ঠান্ডা  পড়বে।  ঘর  নিয়ে  আমরা  বেশ  দুশ্চিন্তায়  পড়লাম।  যা  বুঝলাম,  মুল  হলঘরে  শুধু  পাঞ্জাবি  শিখদেরই  জায়গা   দেওয়া  হয়।  তীরথ  কর্তৃপক্ষকে  জানালো   যে,  আমরা  তাদের  পরিবারের সঙ্গে  এসেছি।  ফলে  আমাদের তীরথ  ও  আর  সব  পাঞ্জাবিদের  সাথে, মুল  হলঘরে  স্থান  দেওয়া  হ’ল।  আমরা  কর্তৃপক্ষের  কাছ  থেকে  গোটা   বার-তের  কম্বল   পেলাম।  মেঝেতে   বেশ  কয়েকটা  পেতে,  গায়ে  দেবারগুলো  ভাঁজ  করে  সাজিয়ে  রেখে,  দু’টো  কাপড়ের  ঝোলাব্যাগ  ও  ওয়াটার  বটলগুলো  মাথার  কাছে  রেখে,  যে   ব্যাগটায়  রামের  বোতল  আছে,  সেটা  নিয়ে  বাইরে  যাব  বলে  প্রস্তুত  হলাম।  তীরথের  মা  বললেন,  “বেটা  সব  সামান  এখানে  প্রেমসে  রেখে  যাও,  কোন  চিন্তা  নেই”।  কী  বলবো  ভেবে  না  পেয়ে  বললাম,  ব্যাগে  গরম   জামা  আছে।  ঠান্ডা  লাগলে  পরে  নেব।  হলঘর  থেকে  বেড়িয়ে  আবার  সেই  চায়ের  দোকানে  আসলাম।  ডিম  সিদ্ধগুলো  এবার  কাজে  লাগানো  গেল।  সঙ্গে  আর  এক  রাউন্ড  গরম  চা।  লক্ষ্য  করলাম  দোকানটার  পাশেই  একটা  ডাকবাংলো  আছে।  ঠিক  করলাম  আর  এক  মুহুর্তও  ঐ  গুরুদ্বোয়ারায়  থাকা  নেই।  কোনভাবে  জানাজানি  হয়ে  গেলে  আমাদেরও  বিপদ,  তীরথও  খুব অপমানিত  হবে।  মাধব  ও  দিলীপ  গেল  ডাকবাংলোয়  খোঁজ  নিতে।  কিন্তু  ওখানে  জায়গা  পাওয়া  গেল  না।  ওদের  বললাম,  গুরুদ্বোয়ারার  পাশেই  একটা  ছোট্ট  হোটেল  মতো  আছে,  ওখানে  একবার  চেষ্টা  করে  দেখতে।  ব্যবস্থা  হলে  তীরথকে  একটু  বুঝিয়ে  বলতে  যে,  আমাদের   গুরুদ্বোয়ারায়  থাকতে  অসুবিধা  হচ্ছে।  ভাবছি,  তীরথ  চাইছে  কী  করে  আমাদের  আরও  বেশি  আরামে,  আরও  ভালোভাবে  রাখা  যায়,  আর  আমরা  চাইছি  কী  করে  ওদের  হাত  থেকে  মুক্তি  পাওয়া  যায়।  মাধব  ও  দিলীপ   চলে  গেল।  আমি  সমস্ত   বাধার  একমাত্র  কারণ,  ছোট্ট  একটা  রামের  বোতল  আগলে,  দোকান  থেকে  একটু  দুরে  একটা  পাথরের  ওপর,  ওদের  ফেরার  অপেক্ষায়  বসে  থাকলাম।  হেমকুন্ড  সাহেব  প্রায়  পনের  হাজার  দুশ’ ফুট উচ্চতায়  অবস্থিত।  ভেবেছিলাম  এখানে  থাকলে  সুবিধা  মতো  ঘর  না  পেলে,  ঠান্ডার  হাত  থেকে  বাঁচতে সামান্য  রামের  প্রয়োজন  হতে  পারে।  কল্যানদা  মিলিটারি  লোক,  সে  আমাদের  এ  কথা  বলেছিল।  এখন দেখছি  গোবিন্দঘাটে  ওটাকে  সুটকেসে   রেখে  এলেই  ভাল  করতাম।  চুপ   করে  বসে  ওদের  জন্য  অপেক্ষা করা  ছাড়া  উপায়  নেই।  প্রায়  কুড়ি  মিনিট  কেটে  গেল,  একা  একা  বসে  আছি,  ওদের  পাত্তা  নেই। বাধ্য  হয়ে  আবার  গুরুদ্বোয়ারার  দিকে  এগিয়ে  গেলাম।  গিয়ে  দেখি  মাধবরা   তীরথের  সাথে  গল্প  করছে। আমাকে  দেখেই  তীরথ   বললো,  “রায়,  তোমার  কোন  চিন্তা   নেই  আমি  আছি।  ঘরের  মধ্যে  খেও  না।  বাইরে  যতবার  ইচ্ছে  খেয়ে  আস,  কেউ  কিছু  বলবে  না “।  বুঝতে  পারছি  না,  ওরা  তীরথকে  ঠিক  কী  বলেছে।  তবে  এটা  বেশ  বুঝতে  পারছি,  যে  ওরা  নিশ্চই  বলেছে  যে  আমার  অসুবিধা  হচ্ছে,  তাই  ওরা এখান  থেকে  অন্য  কোথাও  চলে  যেতে  চায়।  আরও  বুঝলাম  যে  ওদের  সে  চেষ্টা  সফল  হয়  নি।  ভাবছি  ওদের  হাত  থেকে  মুক্তি  পেতে  আমাকে  ওরা  তীরথের  কাছে  মাতাল  বানিয়ে  ছাড়েনি  তো ? পরে  সব  শুনলাম।  ওরা  বুদ্ধিটা  ভালোই  বার  করেছিল।  ওরা  তীরথকে  বলেছিল,  আমি  প্রচন্ড  রকম  ধুমপান  করি।  এখানে  সেটা  একবারে  নিষিদ্ধ।  তাই  আমি  চাই  এখান  থেকে  অন্য  কোথাও  চলে  যেতে।  অবশ্য সারাদিন  আমরা  এক  সঙ্গেই  থাকবো,  এক  সাথেই  রাস্তা  চলবো।

                  GHANGRIA                                        GURDWARA OF GHANGRIA

                            ঘাংরিয়া                                                              ঘাংরিয়া  গুরুদ্বোয়ারা

পাশের  একমাত্র  হোটেলে  জায়গাও  ছিল।  ভাড়া  মাত্র  পনের  টাকা।  মাঝ  থেকে  লাভ  হ’ল  পালানো  তো গেলই  না,  অনবরত  তীরথ  মাধবকে  বলছে,  “এই  ব্যানার্জী,  রায়কো  সিগারেট   দেও”।   সে  এক  মহা অস্বস্তি।  ক্রমে  রাত  নেমে  আসলো।  আমাদের  নিয়ে  তীরথ  রাতের  খাবার  খেতে  গেল।  ভয়  হচ্ছিল এখানেও  খোলা  জায়গায়  বসে,  রুটি  হাতে  “শতনাম  এ  হ্যায়  গুরু”  গাইতে  হবে  কী  না।  পাশের  চায়ের দোকানে  গরম  আলুর  পরোটা  পাওয়া  যায়  শুনে  এসেছি।  তবু  গরম  আলুর  পরোটা  ছেড়ে,  তীরথের  সাথে ডাল,  রুটি  খেতে  যেতে  হ’ল।  এখানেও  দেখছি  সমস্ত  মহিলারা  রান্নার  কাজে  ব্যস্ত।  তবে  খাওয়ার জায়গাটা  খোলা  আকাশের  নীচে  নয়।  এখানে  ঠান্ডা  অবশ্যই  অনেক  বেশি।  বরফের  মতো  ঠান্ডা  জলে হাত  ধুয়ে,  সবার  সাথে  লাইনে  বসে  পড়লাম।  ডাল,  তরকারী  ও  রুটি।   দু’টো  রুটি  খেলাম।  তীরথ ভাবলো  আমরা  লজ্জা  পাচ্ছি।  সে  আমাদের  আরও  রুটি  খাবার  জন্য  জোর  করতে  লাগলো।  আমরা  কিন্তু  আর  রুটি  খেলাম  না।  সবার  খাওয়া  শেষ  হয়ে  গেলে,  ঠান্ডায়  কাঁপতে  কাঁপতে  গেলাম  বাসন  মাজতে।  তীরথের  বোন  কিন্তু  এবার  আমাদের  কিছুতেই  বাসন  মাজতে  দিল  না।  সে  বললো,  “হাম তুমকো  ভাইয়া  বোলা”,  ইত্যাদি।  যাক  ভাগ্য  ভাল,  এ  যাত্রা  বেঁচে  গেলাম।  তীরথ  পাশের  চায়ের  দোকানে  ছুটে  গিয়ে  আমাদের,  বিশেষ  করে  আমাকে,  সিগারেট  দিতে  বলে  আসলো।  এত  লজ্জা  করছিল  কী  বলবো।  বৃষ্টি  শুরু  হ’ল।  ঘরে  ফিরে  এসে  কম্বল  চাপা  দিয়ে  শুয়ে  পড়লাম।

আজ  আগষ্ট  মাসের  ঊনিশ  তারিখ।  ঘুম  ভাঙ্গলো  তীরথের  “এ  রায়  উঠো”  ডাকে।  উঠতেই  কফির  গ্লাশ এগিয়ে  দিল।  ভাবলাম গুরুদ্বোয়ারা থেকেই  কফি  দেওয়া  হয়েছে।  পরে  শুনলাম  পাশের  চায়ের  দোকান থেকে  সবার  জন্য,  মানে  আমরা  তিনজন  ও  ওর পরিবারের  সবার  জন্য  কফি  কিনে  এনেছে।  ভোর  বেলার  কাজ  সারবার  জন্য  ঘর  থেকে  বেড়িয়ে  এলাম।  তীরথদের  বলে  এলাম হেমকুন্ড  যাবার  জন্য তৈরি  হয়ে  নিতে।  চায়ের  দোকানটায়  তিন  কাপ  চায়ের  অর্ডার  দিলাম।  দাম  নিল  না।  জিজ্ঞাসা  করতে দোকানদার  জানালো,  পাঞ্জাবি  ভদ্রলোক  তিন  কাপ  চায়ের  দাম  দিয়ে  গেছেন।  আমরা  যে  আবার  চা খেতে  আসবো,  তীরথ  বুঝতে পেরেছিল।  দোকান  থেকে  বেড়িয়ে  সকালের  কাজ  সারতে  গেলাম  গুরুদ্বোয়ারার  খাটা  পায়খানায়।  হেমকুন্ড  বা  নন্দন  কাননের  দিক থেকে  কোন  ঝরনার  জল,  রাস্তার  পাশ  দিয়ে  গড়িয়ে  এসে  গুরুদ্বোয়ারার  একটা  চৌবাচ্চায়  ভর্তি  হচ্ছে।  ফলে  চৌবাচ্চাটা  সবসময় জলে  ভর্তি  থাকে।  চৌবাচ্চার  অপর  দিকে  নালার   মতো  কাটা।  ফলে  অতিরিক্ত  জল  ঐ  পথে  পরপর  দু’টো পায়খানার  ঠিক  তলা দিয়ে  বেশ  জোরে  সবসময়  বয়ে  চলেছে।  এরকম  অদ্ভুত  ব্যবস্থা  আগে  কখনও কোথাও  দেখি  নি।  নতুন  এই  ব্যবস্থা  কিন্তু  বেশ  অস্বস্তিকর।  এর  থেকে  ফাঁকা  জায়গায়  গালে  হাত দিয়ে  বসা  অনেক  ভালো।  আমরা  ওপর  থেকে  ঝরনার  জল  আসা  নালাটা  অতিক্রম  করে,  একটু  ফাঁকা জায়গায়  তিনজনে  লাইন  দিয়ে  বসে  পড়লাম।  মাধবের  প্রথমে  এ  ব্যবস্থায়  যথেষ্ট  আপত্তি  ছিল।  কারণ এই  জলই  গুরুদ্বোয়ারায়  খাবার  জল  হিসাবে  ব্যবহার  করা  হয়।  কিন্তু  এ  ছাড়া  উপায়ই  বা  কী ? অল্প কিছুক্ষণের  মধ্যে  আমরা তৈরি  হয়ে  নিলাম।  কিছু  খাওয়া  হ’ল  না।  ভাবলাম  রাস্তায়  যাহোক  খেয়ে  নেব।

হেমকুন্ড  যাবার  রাস্তা  একটু  ওপরে  উঠে,  ইংরাজী   “ওয়াই”  (Y)  অক্ষরের  মতো  দু’ভাগ  হয়ে  গেছে। বাঁদিকটা  নন্দন  কাননের  পথ, ডানদিক  গেছে  হেমকুন্ড  সাহেব।  এখানে  এসে  জানতে  পারলাম, হেমকুন্ডে  বিশাল  গুরুদ্বোয়ারা  স্থাপিত  হচ্ছে।  গুরুদ্বোয়ারা  তৈরি  শেষ  হতে  ১৯৮২-‘৮৩  সাল।  বর্তমানে ওখানে  থাকবার  ব্যবস্থা  নেই।  কাপড়ের  দু’টো  ঝোলাব্যাগে  ওয়াটার  প্রুফ  ও  টুকিটাকি  জিনিস  নিয়ে, তৃতীয়টায়  সোয়েটার  চাপা  দিয়ে  বোতলটাকে  রেখে,  আমরা   হেমকুন্ডের  উদ্দেশ্যে  যাত্রা  শুরু  করলাম। হেমকুন্ডের  উচ্চতা  ১৫২১০  ফুট।  দুরত্ব  ঘাৎরিয়া  থেকে  সাড়ে  পাঁচ  কিলোমিটার।  তীরথ  তার ভগ্নীপতিকে  নিয়ে  হাঁটা  শুরু  করার  আগে,  মুঠো   মুঠো  কিশমিশ,  পেস্তা,  মনাক্কা,  ছোট  এলাচ,  আমাদেরও  দিল,  নিজেরাও  নিয়ে  চিবতে  শুরু  করলো।

                          WAY TO HEMKUND                        GURDWARA OF HEMKUND SAHIB

                                 হেমকুন্ডের পথে                                         হেমকুন্ড গুরুদ্বোয়ারা

অনেকটা  পথ  হেঁটে  এসেছি।  আশ্চর্য,  এ  পথে  এত  লোকের  যাতায়াত,  কিন্তু  কোন  দোকান  নেই।  চারিদিকে  নানারকম  ফুলের সমারোহ।  বেশীরভাগ  ফুলের  রঙ  বেগুনি।  এমনকী  প্রজাপতিগুলো  পর্যন্ত বেগুনি  রঙের।  এতটা  রাস্তায়  ব্রহ্মকমল  কোথাও  দেখলাম না।  তীরথরা  পিছিয়ে  পড়েছে,  তাই  মাঝে-মাঝেই  ওদের  জন্য  অপেক্ষা  করছি।  দেখা  হলে  আবার  এগিয়ে  যাচ্ছি।  এতক্ষণে  একটা চায়ের  দোকান  পাওয়া  গেল।  চা  খেয়ে  নিলাম।  তীরথের  মা  ও  বোন, দু’জনেই  দেখলাম  এবার  কান্ডি  নিয়েছেন। আমরা  বেশিরভাগ  বাইপাস্-ই  ব্যবহার  করায়,  অনেক  এগিয়ে  গেলাম।  এবার  রাস্তার  পাশে  গ্লেসিয়ার  নেমে এসেছে  দেখে  খুব  ভালো  লাগলো।  সাদা  বরফের  টুকরো  হাতে  নিয়ে  অনেকটা  পথ  গেলাম।  এখানে  দেখি  চারপাশে  একরকম  হলুদ  রঙের  থোকা   থোকা  ফুল  ও  হালকা  নীল  রঙের  একরকম  চার  পাপড়ির ফুল।  আমার  মনে  হয়  এই  নীল  রঙের  ফুলটাই,  এ  রাজ্যের  সবথেকে  সুন্দর  ফুল।  নন্দন  কানন,  যাকে ভ্যালি  অফ্  ফ্লাওয়ার্স  বলে,  সেখানেও  এত  সুন্দর  ফুল  আছে  কিনা  সন্দেহ।  সর্বাঙ্গে  কাঁটা,  আর  কী  যে অদ্ভুত  একটা  নীল  রঙ  কী  বলবো।  আর  কিছুটা  পথ  এগিয়েই  দুরে,  বহু  উপরে  হাল্কা  সবুজ  রঙের ফুলের  সাম্রাজ্য  চোখে  পড়লো।  একজন  যাত্রীর  কাছে  শুনলাম,  ওগুলোই  ব্রহ্মকমল।  এই  ফুলেই  কেদার নাথের  পূজা  হয়।  ১৪০০০–১৬০০০  ফুট  উচ্চতায়,  পাথুরে  জমিতে  এরা  জন্মায়।  হাঁটার  গতি  যেন বেড়ে  গেল।  রাস্তায়  দু’একটা  কেবল  তোলা  ব্রহ্মকমল  পড়ে  থাকতে  দেখলাম,  বোধহয়  কোন  যাত্রী  তুলে  ফেলে  রেখে  গেছে।  আমরা  কুড়িয়ে  নিলাম।  এত  উগ্র  গন্ধ,  বোঝাতে  পারবো  না।  আমার  মনে  হ’ল,  আমাদের  এখানকার  শিয়ালকাঁটা  ফুলের  গন্ধের  সাথে  কোথায়  যেন  একটা  মিল  আছে।  তবে  গন্ধের  তীব্রতা  বেশ  কয়েকগুণ  বেশি।  ফুলের  ভিতরে  চার-পাঁচটা  ফুলের  মতো  রেণুর  আধার।   খুব  হাল্কা  সবুজ  রঙ।  ভূট্টার  খোলা  ছাড়াতে  ছাড়াতে,  শেষের  দিকে  যেমন  সাদাও  নয়,  সবুজও  নয়  গোছের  রঙ  দেখা  যায়,  অনেকটা  সেরকম।  পাপড়িগুলো  এত  পাতলা,  যে  মনে  হয়  এদিক  থেকে  ওদিক  দেখা  যাবে। তীরথ  এসে  হাজির  হ’ল।  ও  বললো  পরে  অনেক  পাবে,  এগিয়ে  চলো।  ওর  হেমকুন্ড  এই  দ্বিতীয়  বার।  হেমকুন্ড  সাহেব  ওদের  ধর্মের  একটা  অতি  পবিত্র  জায়গা।  হাঁটতে  হাঁটতে  একসময়  আমরা  সত্যিই  ব্রহ্মকমলের  রাজত্বে  এসে  পৌঁছলাম।  গাছগুলো  অনেকটা  মুলো  গাছের  মতো,  গোটা  গাছটায়  ঐ  ফুলের  গন্ধ।  গাছে  হাত  দিতে  আমাদের  হাতে,  জামাকাপড়ে  তীব্র  ফুলের  গন্ধে,  ম’ম  করতে  লাগলো।  গাছের পাতার  মধ্যে  যে  শিরাগুলো  দেখা  যায়,  সেগুলো  বেশ  উচু  ও  স্পষ্ট,  অনেকটা  খরগোশের  কানের মতো।  হেমকুন্ডে  প্রায়  পৌঁছে  গেছি।  মেঘ  করে  আসছে  ছবি  তুলতে  হবে, তাই  ফুল  না  তুলে  হাঁটার  গতি  বৃদ্ধি  করলাম।  রাস্তা  এবার  দু’ভাগে  ভাগ  হয়ে  গেছে।  একটা  পথ  সিঁড়ি  ভেঙ্গে  ওপরে  উঠতে  হয় ।  অনেক-গুলো  সিঁড়ি,  তাই  সিঁড়ি  ভাঙ্গার  কষ্টও  প্রচুর।  তবে  অনেক  তাড়াতাড়ি  পৌঁছনো  যায়।  অপর  পথটা  রাস্তা  দিয়ে  ঘুরে  ঘুরে  যেতে  হয়।  কষ্ট  লাঘব  করতে  ও  প্রাকৃতিক  দৃশ্যকে  উপভোগ  করতে,  আমরা  রাস্তা  দিয়েই  এগলাম।  দুরে  একটা  নীল  ও  হলুদ  রঙের  পতাকা  উড়তে  দেখা  গেল।  সমস্ত  গুরুদ্বোয়ারায়  এই  দুই  রঙের  পতাকা  উড়তে  দেখেছি।  পতাকা  লক্ষ্য  করে  আমরা  গুরুদ্বোয়ারাতে  এসে  হাজির  হলাম।  কাজ  শেষ  হতে  এখনও  অনেকদিন  লাগবে।  এতবড়  এলাকা  নিয়ে,  এত  বিশাল  গুরুদ্বোয়ারা  এখানে  তৈরি  হচ্ছে,  ভাবতেও  পারি  নি।  খরচ  কত  হবে  ভাবা  যায়  না।  তার  থেকেও  বড়  কথা,  গুরুদ্বোয়ারা  তৈরির  এত  লোহার  রড,  ও  অন্যান্য  মালমশলা,  গোবিন্দঘাট   থেকে  এই  রাস্তায়  এত  উচ্চতায়  কী ভাবে  নিয়ে  আসা  হয়েছে।  তীরথ  জানালো,  পাঞ্জাবিরা  গুরুদ্বোয়ারার  জন্য  অনেক  দান  করে।  কয়েকটা  উদাহরণ  শুনে  মনে  হ’ল,  এটা  ওদের  পক্ষেই  সম্ভব।

বড়  বড়  লোহার  স্ট্রাকচার,  টিনের  ছাদ,  মাঝখানে  একপাশে  মন্দিরের  মতো।  ওখানে  ওদের  ধর্মগুরুর ছবি।  ছবিতে  প্রচুর  ব্রহ্মকমল  ফুল  দেওয়া  আছে।  ব্রহ্মকমলের  মালা  দিয়েও  সাজানো।  গুরুদ্বোয়ারার পিছনেই  কুন্ড।  ওপরের  পাহাড়  থেকে  এই  বিশাল বড় গ্লেসিয়ার,  লেক  বা  কুন্ডের   জলে  নেমে  এসেছে। কুন্ডের  পারে  দাঁড়িয়ে  মনে  হ’ল,  জলের  গভীরতা  খুব  বেশি  নয়।  এই এলাকাটা  সাতটা  পাহাড়ের  চুড়া দিয়ে  ঘেরা।  আগে  এ  জায়গাটা  লোকপাল  নামে  পরিচিত  ছিল।  দশরথ  পুত্র  লক্ষণ  এই  এলাকার  আরাধ্য দেবতা  ছিলেন।  যাহোক্,  কুন্ডের  একপাশে  অনেক  পাঞ্জাবির  ভিড়,  সবাই  কুন্ডে  স্নান  করতে  ব্যস্ত। আমাদের  বাসের  আর সব  পাঞ্জাবিরা  স্নান   সেরে  কাপড়  বদলাচ্ছে।  মহিলারাও  কুন্ডে  স্নান  করছে।  এই কুন্ডে  স্নান  করতেই,  সুদুর  পাঞ্জাব  থেকে  আসা। পাঞ্জাবিরা  সবাই  সঙ্গে  স্নানের  কাপড়,  গামছা  ইত্যাদি  নিয়ে  এসেছে।  আমরা  স্নান  করার  মতলব  নিয়ে  আসি  নি।  কিন্তু  সকলে  আমাদের  এই  কুন্ডে  স্নান করার  জন্য  অনুরোধ  করতে  লাগলো।  অনেকে  আবার  জানালো,  যে  কুন্ডের  জল  গরম  এবং  এই  কুন্ডে স্নান  করলে,  সব  রকম  রোগ  মুক্তি  হয়,  শরীর  ভাল  হয়, পূণ্য  অর্জন  তো  আছেই।  রোগমুক্তি  হয়  কিনা জানি  না,  তবে  কুন্ডের  জল  যে  গরম,  সে  তো  গ্লেসিয়ার  দেখেই  বুঝতে  পারছি।  একে  মেঘ  করে  আছে ও   বেশ  ঠান্ডা,  তার  ওপর  ঐ  বরফগোলা  ঠান্ডা  জলে  স্নান  করতে  আমরা  রাজি  হলাম   না।  ওরাও ছাড়বার  পাত্র  নয়।  সবাই  একসাথে  সাহস  ও  উৎসাহ  দিতে  লাগলো,  দেখে  মনে  হয়  নিজেরা  স্নান  করে রোগমুক্তি  ও  পূণ্যলাভের  থেকে,  আমাদের  স্নান  করিয়ে  রোগমু্ক্ত  ও  পূণ্যলাভ  করানোয়,  তাদের  আগ্রহ  অনেক  বেশি।  একটা  জাপানি  ছেলেকে  দেখলাম,  ঐ  ঠান্ডা  জলে  মনের  সুখে  সাঁতার  কেটে  যাচ্ছে।  ওর  ক্ষমতা  দেখে  অবাক  হতে  হয়।  আমরা  যে  ঠিক  ঠান্ডার  জন্য  স্নান  করতে  চাইছিনা,  তা  কিন্তু  নয়, আসলে  আমাদের  সাথে  কোন  দ্বিতীয়  বস্ত্র,  এমনকী  গামছা  পর্যন্ত  নেই।  কুন্ডের  ধারে  ধারে   জলের  মধ্যে  অনেক  বড়  বড়  পাথর  পড়ে  আছে।  আমরা  একটা  পাথরের  ওপর  কিছুক্ষণ  বসে  চলে  আসবো  ঠিক  করলাম।

সমস্ত  পাঞ্জাবিদের  অনুরোধে  কাজ  না  হওয়ায়,  গুরুদ্বোয়ারার  সাধুবাবা  এগিয়ে  এসে  প্রায়  হাত  জোড় করে  আমাদের  স্নান  করতে অনুরোধ  করলেন।  তিনিও  বললেন,  এই  জলে  স্নান  করলে  রোগমুক্তি  হয়, অনেক  সুস্থ  বোধ  হয়।  তাঁর  বয়স,  সৌম্য  চেহারা, ধবধবে  সাদা  দাড়িগোঁফ,  এবং  সমস্ত  পাঞ্জাবি  সম্প্রদায়ের  কাছে  তাঁর  সম্মান  দেখে,  তাঁর  অনুরোধ  উপেক্ষা  করতে  পারলাম না। বিনয়ের  সঙ্গে  বললাম,  আগে  জানতাম  না  তাই  সঙ্গে  স্নান  করার  কোন  কাপড়  নিয়ে  না  আসায়,  স্নান  করার অসুবিধা  আছে। ভাবলাম  সবজান্তা  বাঙালি  বুদ্ধিতে  এ  যাত্রা  বেঁচে  গেলাম।  ও  বাবা,  আমাদের  বাসের পরিচিত  পাঞ্জাবিরা  আমাদের  শুকনো  ভাঁজ করা   ধুতি  দিয়ে,  স্নান   করতে  বললো।  বাধ্য  হয়ে  প্রথমে আমি  প্যান্ট  জামা  ছেড়ে  ধুতি  পরে,  হাঁটু  জলে  নামলাম।  মনে  হ’ল  এক হাঁটু  বরফে  পা   দু’টো   ঢুকে  গেল।  ডুব  না  দিয়ে  পারে  উঠে  এলাম।  পাঞ্জাবিরা  পারে  দাঁড়িয়ে,  একসাথে  হাত  নেড়ে  উৎসাহ  দিয়ে আমাকে  ডুব  দিতে  বললো।  আবার  নামলাম,  আবার  উঠে  এলাম।  ডুব  দেওয়া  ঠিক  হবে  কী না  বুঝে  উঠতে  পারছি  না।  এবার আবার  সেই  বৃদ্ধ  সাধুবাবার  অনুরোধ।  যা  আছে  কপালে  ভেবে  ডুব  দিয়ে  দিলাম।  এক  ডুবেই  কাত,  পঞ্চ  ইন্দ্রিয়  বন্ধ  হবার জোগাড়।  চোখে  যেন  ঝাপসা  দেখছি,  কানের ভিতর  লক্ষ  ঝিঁঝিঁ   পোকা  একসাথে  গলা  সাধতে  শুরু  করে  দিল।  ঢোক্  গিললে  গলা সাধা  সাময়িক বন্ধ  করেই,  আবার  শুরু  হয়।  পাথর  ধরে  মিনিট  খানেক  দাঁড়াতে,  একটু  সুস্থ  বোধ  করলাম।  উঠে  এসে  গা  মুছে প্যান্ট  জামা  পরে  নিলাম।  দিলীপ  ও  মাধব  জলে  নামলো।  ওরা  ডুব  দিয়ে  জল  থেকে  উঠে  এসে  কাঁপতে  শুরু  করলো।  ওদের  ছবি তুলে  নিলাম।  সবার  পোষাক  বদল  হলে,  গুরুদ্বোয়ারার  ভিতর  গেলাম।  সঙ্গে  সঙ্গে  বড়  বড়  গ্লাশে  করে  গরম  চা  দিয়ে  গেল। এবার বুঝছি  স্নান  না  করলে  কী  ভুল  করতাম।  মনে  হচ্ছে  না  সাড়ে  পাঁচ  কিলোমিটার  পথ  হেঁটে,  পাঁচ  হাজার  ফুট  উচ্চতা  পেরিয়ে  এসে, আমরা  এখন  ১৫২০০  ফুট  উচ্চতায়  দাঁড়িয়ে  আছি।  একবারে  নতুন  উৎসাহ  ফিরে  পেলাম।  শরীরও  খুব  সুস্থ  বোধ  হচ্ছে।  ওরা জানালো  গুরু  গোবিন্দ্  সিং  এর  আশীর্বাদ।

                    HEMKUND SAHIB                         HEMKUND SAHIB (2)

                                 হেমকুন্ড                                                হেমকুন্ডে স্নান

আকাশে  বেশ  মেঘ  আছে।  তীরথ  বললো  এবার  ফেরা  প্রয়োজন,  বৃষ্টি  আসলে  রাস্তায়  কষ্ট  হবে।  আরও  কিছুক্ষণ  ওখানে  কাটিয়ে, বারবার  পিছনে  তাকাতে  তাকাতে,  আমরা  ফেরার  পথ  ধরলাম।  এত  কষ্ট,  রাস্তায়  বাসে  বসে  নিদ্রাহীন  রাত্রিবাস,  সারাদিন  বৃষ্টিতে ভিজে  খাদে  পাথর  ঠেলে  ফেলার  প্রথম  সুফল পেলাম।  মনে  অনেক  জোর  বেড়ে  গেল।  মনে  হ’ল  আজই  একবার  নন্দন  কানন  ঘুরে গেলে  বেশ  হয়। মনের  ইচ্ছা  মনে  রেখেই  নেমে  আসছি।  দু’হাত  ভরে  যত  পারি  ব্রহ্মকমল  তুলে,  পলিথিন  ব্যাগে  ভরে নিলাম।  নানা রকম  ফুলও  দু’চারটে  করে  তুলে  নিলাম।  এ  যেন  দীঘার  সমুদ্র  পারে  ঝিনুক  সংগ্রহের মতো।  এগুলো   নিয়ে  কী  হবে  জানি  না, জানি  না  ব্রহ্মকমলগুলো  এত  সব  জায়গা  ঘুরে  বাড়ি  নিয়ে আসতে  পারবো  কিনা।  ধীরে  ধীরে  আগেকার  পথ  ধরে  নেমে  আসছি। সেই  পুরানো  দৃশ্য।  আকাশ এখন  কিছুটা  পরিস্কার  হয়েছে।  যাবার  পথে  যে  চায়ের  দোকানটা  দেখে  গেছিলাম,  সেটার  কাছে  ফিরে এলাম।  তীরথ  আমাদের  সাথে  দোকানটায়  চা   খেতে  এল।  ওর  মা  ও  বোনও  কান্ডিতে  এসে  গেছেন।  তীরথ  আমাদের  পকোড়া, পাঁপড়  ভাজা  ও  চা  খাওয়ালো।  চা  খেতে  খেতে  তীরথ  হঠাৎ  একটা  অদ্ভুত  প্রস্তাব  করে  বসলো।  সে  আমাদের  জানালো  যে  তার অফিসের  ছুটি  খুব  কম।  মা,  ভগ্নীপতি  ও  বোনকে   নিয়ে  বদ্রীনারায়ণ  যাবে,  গরম  কুন্ডে  স্নান  করে  পূণ্য  অর্জন  করতে।  তাই  ও চায়  আজই  নন্দন  কানন  ঘুরে  আসতে।

আমার  মনেও  এই  ইচ্ছা  অনেকক্ষণ  থেকেই  উকি  দিচ্ছিল।  কিন্তু  তীরথ  আমাদের  সাথে  নন্দন  কানন  যেতে  চায়,  আকাশের  অবস্থাও  ভাল  নয়,  ও  তার  অসুস্থ  ভগ্নীপতিকে  কোথায়  রেখে  যাবে,  ইত্যাদি  ভেবে,  আজ  আর  ওখানে  যাওয়ার  কথা  চিন্তাও  করি  নি।  তীরথের  প্রস্তাব  শুনে  ওকে  বললাম,  নন্দন  কাননের  কিছু  ছবি  তোলার  ইচ্ছা  আছে।  আকাশের  অবস্থা  মোটেই  ভালো  নয়,  সন্ধ্যাও  নেমে  আসবে।  কাজেই  আজ  ওখানে  যাওয়া   যেতেই  পারে,  কিন্তু  আজ  যদি  ভালো  আবহাওয়া  না  পাই,  তবে  আগামীকাল  সকালে  ওখানে  আবার  যাব।  কিন্তু  আজ  সে  তার  ভগ্নীপতিকে  ওখানে  কী  ভাবে  নিয়ে  যাবে ?  তীরথ  জানালো  যে, সে  ওখানে  একাই  যাবে।  সে  বললো,  আমরা  আজ  নিশ্চই  ভাল  ওয়েদার  পাব।  না  পেলে  ও  আমাদের  আগামীকালের  যাত্রায়  সঙ্গ  দেবে।  বেশ  বুঝতে  পারছি,  ও  আসলে  যত  তাড়াতাড়ি  সম্ভব,  জায়গাগুলো  দেখে  নিতে  চাইছে।  ওর   ছুটি  একে   কম,  তার  ওপর   পথে  দু’দিন  অযথা  নষ্ট  হয়েছে।  আমরা  ওকে  সঙ্গ  না   দিলে,  ওর   পক্ষে  একা  যাওয়াও  সম্ভব  নয়।  আকাশ  নিশ্চই   পরিস্কার  হবে,  অন্তত  ভালোভাবে  দেখবার  ও  ছবি  তুলবার  মতো  পরিস্কার  হবে,  এই  আশা  নিয়ে  এগলাম।  রাস্তায়  হেমকুন্ডে  সাঁতার  কাটা  সেই  জাপানির  সাথে  আলাপ  হ’ল।  ও  কী  একটা  পড়বার  জন্য  গত  দুই  বৎসর  আমেরিকায়  ছিল।  ওখান   থেকে  কয়েকটা  দেশ  ঘুরে  এখানে  এসেছে।  এখান  থেকে  আবার   দু’একটা  প্রতিবেশী  দেশ  ঘুরে,  নিজের  দেশে  ফিরে  যাবে।  ও  জানালো  এত  সুন্দর   দেশ  ও   আগে  দেখে  নি।  বললাম,  “তোমার  দেশেও  তো  খুব  সুন্দর  ফুল  ফোটে”?   সে  জানালো   সে  ফুলও  এত  সুন্দর  নয়।  ভাবলাম  তুমি  এসেছ  ফুলের  রাজ্যে,  তা  নাহলে  দেখতে  জবা,  গাঁদা,  অপরাজিতা   বা  কলাফুলে   চারিদিক  ঘিরে  আছে।  একসময়  যে  জায়গাটা  থেকে  রাস্তা   দু’দিকে  বেঁকে  ভাগ  হয়ে   গেছে,  আমরা  সেখানে   চলে  এলাম।  স্থির   হ’ল  আমরা  আজই  নন্দন  কানন  যাব।  দিলীপ  জানালো,  ওর  পক্ষে  আজ  আর  হাঁটা  সম্ভব  নয়।  আমাদের  পক্ষেও  যে  কতটা  সম্ভব  জানিনা।  তবু   হেমকুন্ড  ঘুরে  এসেছি  বলেই  বোধহয়,  নিজেকে  কেমন  বীর  বীর  মনে  হচ্ছে।  আমরা  ওকে  বললাম,  আজ  আমরা  তীরথকে   নন্দন  কানন  দেখিয়ে  নিয়ে  আসি।  কাল  ওকে  বদ্রীনারায়ণ  পাঠিয়ে  দিলে  আমরা  মুক্ত।  কাল  সকালে  আমরা  তিনজন  আবার  নন্দন  কানন  যাব।  দিলীপের  হাতে  ফুলের  ব্যাগ  ও  কাপড়ের  ব্যাগদুটো  দিয়ে,  ওয়াটারপ্রুফ  হাতে  নিয়ে,  আমরা   নন্দন  কাননের  রাস্তা  ধরলাম।  ওরা  নীচে  গুরুদ্বোয়ারার  উদ্দেশ্যে  যাত্রা  করলো।

একটু  এগিয়েই  বৃষ্টি  শুরু  হ’ল।  গায়ে  ওয়াটারপ্রুফটা  চাপিয়ে  নিলাম।  মাথায়  একটা  সুর্যালোক  ঢাকবার জন্য  কাপড়ের   টুপি পরেছিলাম,  তার   ওপরে  বর্ষাতির  টুপিটা  দিয়ে  হাঁটতে  লাগলাম।  কিছুক্ষণ  পরে  মাথা  ভিজে  যাচ্ছে  দেখে  মাথায়  হাত  দিয়ে  দেখি, হায়  কপাল,  সেটা  কখন  আমায়  ত্যাগ  করে  চলে গেছে।  মহা  চিন্তায়  পড়লাম।  এভাবে  পথ  চলা  অসম্ভব।  ভবিষ্যতেই  বা  কী করবো ?  তীরথকে  ডেকে বিপদের  কথা  বললাম।  ও  এখন  ভগ্নীপতি  ছাড়া  হয়ে,  এবং  আজই  নন্দন  কানন  দেখার  সুযোগ  পেয়ে, আনন্দে  তিনগুণ  গতিতে  চলেছে।  ও   যে  পাহাড়ি  রাস্তায়  কত   জোরে  হাঁটতে  পারে,  এতক্ষণে  বুঝতে পারছি।  ও  আমায়  বললো,  যে আমি  ওর  বর্ষাতির  টুপিটা  নিতে  পারি,  কারণ   ওর  বর্ষাতির  সঙ্গে আটকানো  আর  একটা  টুপি  আছে।  আমি  বললাম,  কিন্তু  এরপর ?  ও  জানালো,  ওর   দু’টো  বর্ষাতি টুপির  কোন  প্রয়োজন  নেই,  কাজেই  এই  টুপিটা  আমি  স্বচ্ছন্দে  নিজের  কাছেই  রাখতে পারি।  মুশকিল হ’ল  ওর  টুপির  মাপ  অনেক  বড়,  আমার  চোখ  ঢেকে  যাচ্ছে।  কোন  রকমে  চারপাশে  মুড়ে,  ছাই  রঙের  বর্ষাতির সঙ্গে  গোলাপি  রঙের  টুপি  পরে,  জোকার  সেজে  এগতে  শুরু  করলাম।  সামনে  একটা  গ্লেসিয়ার পড়লো।  একটা  মাঠের  মতো  পাথুরে অংশের  ওপর  দিয়ে  গিয়ে  গ্লেসিয়রটা  পার  হতে   হবে।  সাবধানে  চলেছি।  দেখি  কতগুলো  ছেলে  গ্লেসিয়ার  কেটে  রাস্তার  মতো  তৈরি করছে।  ওরা  তীরথের  কাছে  কিছু  সাহায্য  চাইলো।  তীরথ  পকেট  থেকে  কিছু  খুচরো  পয়সা  বার  করে,  তাদের  দিয়ে  এগিয়ে  গেল।

     VALLEY OF FLOWERS (8)         WAY TO VALLEY OF FLOWERS (3)          VALLEY OF FLOWERS (12)

                                            নন্দন কানন (Valley Of Flowers)

হঠাৎ  লক্ষ্য  করলাম,  তীরথ   যে   জায়গাটায়  দাঁড়িয়ে  আছে,  সেখানকার  গ্লেসিয়ারটা  কিরকম  ঝুলছে। গ্লেসিয়ারের  ঐ  অংশের  বরফ কিরকম  গলে  গিয়ে  একটা  পাতলা  বরফের  তক্তার  মতো  হয়ে  রয়েছে। তক্তার  শেষ  দিকটা  পাতলা  হয়ে  বিপজ্জনক  অবস্থায়  ঝুলছে,  আর  তীরথ  ঠিক  সেই  পাতলা  বরফের  তক্তাটার  ওপর  দাঁড়িয়ে  আছে।  তক্তার  অনেক  নীচ  দিয়ে  তীব্র  বেগে  জল  বয়ে  যাচ্ছে।  যে  কোন  মুহুর্তে বরফের  তক্তাটা   ভেঙ্গে   গিয়ে  তীরথকে  নিয়ে  অনেক  নীচের  জলপ্রবাহে  পড়তে  পারে।  ভয়ার্ত  গলায় চিৎকার  করে  ওর  নাম  ধরে  নীচ  থেকে  ডাকলাম।  ও  বোধহয়  ইশারা  বুঝতে  পেরে,  লাফ  দিয়ে অনেকটা  বাঁপাশে  চলে  গেল,  এবং  সেখানেই  সে  চুপ  করে  দাঁড়িয়ে  রইলো।  আমরা  ওর  কাছে  যেতে  ও আমাকে  ওর  প্রাণ  বাঁচানোর,  অন্তত  পক্ষে  চরম  বিপদের  হাত   থেকে  রক্ষা  করার  জন্য , বার   বার ধন্যবাদ  জানিয়ে,  দু’হাত  ভরে  মনাক্কা,  কিশমিশ  ইত্যাদি  দিয়ে,  আমাদের  সাথে  এগিয়ে  চললো।  ক্রমশঃ ওর   থেকে  আমাদের  ব্যাবধান  আবার  বাড়তে  লাগলো।  সকাল  থেকে  শুধু  কয়েক  কাপ  চা   আর তীরথের  মনাক্কা,  কিশমিশ,  পেস্তা,  ছোট  এলাচ  খেয়ে  রয়েছি।  নিশ্বাস  নিতে  খুব  কষ্ট  হচ্ছে,  বোধহয় দম  ফুরিয়ে  এসেছে।  মাধব  আমার  থেকে  কিছুটা  এগিয়ে,  তীরথকে  বহুদুরে  দেখা  যাচ্ছে।  একসময়  আমরা  আবার  মিলিত  হলাম।  তীরথ  আমাদের  জন্য  অপেক্ষা  করছিল।  একটা  ছেলে  নন্দন  কানন  থেকে  ফিরছে।  সে  আমাদের  আর  এগতে  বারণ  করে  জানলো,  রাস্তা  খুব  খারাপ,  বৃষ্টি  হচ্ছে,  আর  এগলে  ফিরতে  অসুবিধা  হবে।  তীরথ  জিজ্ঞাসা  করলো  আমাদের  কী  করা  উচিৎ।  মাধব  কিছু  বলার  আগেই  আমি  বললাম,  এতটা  পথ  কষ্ট  করে  এসে,  ফিরে  যাওয়া  চলে  না।  যা  আছে  কপালে  হবে।  ওরা  রাজি  হ’ল।  তীরথ   বললো,  ও  এগিয়ে  যাচ্ছে।  যাবার  আগে  ও  আবার  আমাদের  ওর  সেই  বিখ্যাত   খাবার  দিতে  গেল।  আমরা  জানালাম  হাতে  এখনও  যথেষ্ট  পরিমান  আছে।  ও  বললো,  আমি  কী  এগুলো  একা  খাবার  জন্য  অত  দুর  থেকে  নিয়ে  এসেছি ?  ও  আমাদের  বর্ষাতির  পকেটে  অনেকটা  করে  ঐসব  দিয়ে, এগিয়ে  গেল।  এবার  দ্বিতীয়  একটা  গ্লেসিয়ার  পড়লো।  সাবধানে   পার  হয়ে  রাস্তায়  উঠলাম।  এপথে  কান্ডি  বোধহয়  যায়  না,  তবে  ঘোড়া  বা  খচ্চরের  যাতায়াত  আছে  বোঝা  যাচ্ছে।  রাস্তা  বলতে  অভ্রযুক্ত পাথরের  টুকরো   ইতস্তত  ভাবে  ফেলে  তৈরি।  অসম্ভব   ধারালো  পাথর,  খালি  পায়ে  হাঁটলে,  পা  কেটে  যাবেই।  বৃষ্টির  জল  ও  ঘোড়ার  মলে  রাস্তা  আরও  পিছল  হয়ে  আছে।  দুরে  দেখলাম  সবুজ  বন।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s